তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-৬ | Jemon Blog
ঢাকাসোমবার - ২৯ নভেম্বর ২০২১
  1. অনলাইন জব
  2. গল্প জানুন
  3. টেক আপডেট
  4. লাভ স্টোরি
  5. সাকসেস লাইফ
  6. সোস্যাল আপডেট
  7. হেলথ টিপস

তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-৬

যেমন ব্লগ ডেক্স
নভেম্বর ২৯, ২০২১ ৫:৩২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ad

অতঃপর এখানে দ্বারা সম্মানিত ব্যক্তিগণ ছিলেন তাদের মাধ্যমে তাদের ইন্টারভিউ সম্পূর্ণ হলো সর্বমোট থেকেছেন মাত্র ৩০ জন। ভালোবাসার রূপ! যারা ঠিক আছে আমি তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এই কাজের এক্সপিরিয়েন্স খুব ভাল ছিল সর্বমোট তাদেরকে আমরা নিয়েছি পরের নিয়োগে আবার আমরা ৩০ জন্য এরকম আশঙ্কা করেছি।

এখন যে ৩০ জন লোক আমরা নিয়েছি তাদেরকে কাজবাজ সবকিছু বুঝিয়ে দিলাম তারা খুব ভালোভাবে কাজ করতেছে আমরা বাহিরের কয়েকটা ভালো ভাইয়ের সাথে সংযুক্ত হয়েছে তারা আমাদের এখানে পার্টনার হওয়ার জন্য বলেছেন আমরাও ভালো একটা পারফর্ম করতে পারবো এ দাবি রাখতে পেরেছি। অতঃপর আমাদের কোম্পানি চালু হয়ে গেল আমাদের এখন বাহিরে বায়ার আর খুঁজতে হবে আমাদের কাজগুলো রানিং এবং আমাদের সরকারগুলো তৈরি হচ্ছে খুব ইউনিক এবং খুবই ডিজাইন সহকারে যাতে মানুষ খুবই অ্যাট্রাক্টিভ হতে পারে এজন্য খুব ভালোভাবে আমাদের কাজ চলছে। ভালোবাসার রূপ

এভাবে চলতে থাকলে আমাদের অফিসের কাজ আমরা এক মাস পরে আবার নিয়োগ দিয়েছে তখন আমরা আরো 30 জন লোক নিব তখনও প্রায় দুই হাজারের বেশি লোক এসেছে ইন্টারভিউ দেয়ার জন্য সবার ইন্টারভিউ নিয়েছে এবং সেখান থেকে আমরা মোট 30 জন লোক রেখেছি অতঃপর আমাদের অফিসে এখন সর্বমোট ৬০ জন সরকারি কর্মকর্তারা জড়িত আছেন আমাদের কাজের সাথে সবার কাজ খুবই ভালো হচ্ছে আমাদের নাম খুবই ভালো ভাবে প্রচার হচ্ছে মার্কেটিং সহ সবকিছু খুব ভালোভাবে চলছে একেকজন একেকটা সেক্টরে দিয়েছি যাতে করে আমাদের কাজ খুব ভালোভাবে চলতে থাকে। ভালোবাসার রূপ

আরো পড়ুনঃ  তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-২

আমাদের অফিস কাছে সবকিছু মিলিয়ে আল্লার রহমতে ভালো এখন পারফর্ম করার চেয়ে ভালো কিছু করার লক্ষ্যে আমরা সামনের দিকে আগাচ্ছি আল্লাহর রহমতে প্রত্যেক মাসে আমরা ভালো কিছু প্রফেট পাচ্ছি যা আমাদের কর্মকর্তারা জানান রয়েছেন তাদেরকে দিয়েও আমার প্রচুর টাকা থেকেই যাচ্ছে এভাবে আমরা অফিসের উন্নতিসহ আমরা আমাদের ব্যবসার উন্নতি করে যাচ্ছি করে যাচ্ছি আমাদের ব্যবসা আরো বড় হচ্ছে দিন দিন দিন। ভালোবাসার রূপ

ad

তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-৭

অতঃপর আমরা ভালো একটা পজিশনে আসার পরে আব্বুকে অফিশিয়াল রম অফিস দেখানোর জন্য অবশ্য আব্বু এসেছিলেন প্রথম দিন যখন আমরা উদ্বোধন করেছিলেন তখন তার পর আর আসা হয়নি বিভিন্ন ব্যস্ত থাকে বছরগুলোর মধ্যে থাকার জন্যে ওর আব্বুকে হাসল সবকিছু ভিজিট করুন আপনি খুব খুশি হলো এখন আমাদের যেখানে রয়েছে অর্থাৎ আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে বিজনেস ব্যাংক একাউন্ট সেখানে প্রচুর টাকা জমা হয়ে গিয়েছে সেখান থেকে আব্বু যে টাকাগুলো দিয়েছিল আমাকে ফ্ল্যাট করার জন্য সে টাকাটা ঢুকে সম্পূর্ন ভাবে বুঝিয়ে দিলাম কারণ আমি বিজনেস করবো আমার নিচেরটা কেরকম ইচ্ছা ছিল তাই আপনাকে বুঝিয়ে দিলাম এখন সবকিছু আমার নিজের ব্যক্তিগত রয়েছে এখনো আমাদের বিজনেস অ্যাকাউন্ট প্রচুর টাকা জমে আছে। ভালোবাসার রূপ

আরো পড়ুনঃ  তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-৫

অতঃপর আমাদের বিজনেস সহ সবকিছু তিন বছর হয়ে গেল ওদিকে তিন বছরের মধ্যেই আমাদের রিলেশন হয়ে গেছে অর্থাৎ ইশরাতের সাথে আমাদের ভালোবাসা একটা সম্পর্কে আবদ্ধ হয়েছি। আমাদের ভালবাসার সম্পর্কটি খুব ভালোভাবে কান্ট্রি হচ্ছে খুব ভালো হচ্ছে আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে চলা। ভালোবাসার রূপ

এদিকে আমার রিলেশন আর বিজনেসের দুটোই আলহামদুলিল্লাহ খুব ভালো পারফর্ম করেছে দুটোই খুব ভালভাবে চলছে আমার বাসায় জানে আমি যাদের সাথে একটা রিলেশন এর মধ্যে আবদ্ধ‌। বাসা থেকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে কিন্তু এই মুহূর্তে বিয়ে করলে হয়তো আমার জীবনটা আটকা হয়ে যাবে তাই আমি এই মুহূর্তে বিয়ে করতে চাচ্ছি না বিশেষ করে লেখাপড়া এখনো শেষ হয়নি তাই আমি এত আগ্রহী না।

আমি আব্বুকে বলেছি আগে আমার বিজনেস আরো ভালোভাবে পারফর্ম করুক আর সাথে লেখাপড়া শেষ হোক তারপর না হয় আমরা বিয়ে করি। অধিক ইশরাতের আব্বুর সাথে আমার আব্বু খুব ভালো একটা সম্পর্ক রয়েছে তারাও আমাদের সম্পর্কে ভাল জানেন। অতঃপর তারা আমাদের সম্পর্ক অনেক আগেই মেনে নিয়েছেন এবং তারা কোন ধরনের বাধা সৃষ্টি করেনি বিশেষ করে এই এদিকে আমি শিক্ষিত একটা ছেলে আর আমি বেকার না আমি টাকা ইনকাম করি একটা ভালো কোম্পানি চালাই সুতরাং তাদের কোনো দ্বিধা বোধ নেই এখানে তারা সহজেই মেনে নিয়েছেন আমাদের রিলেশন। ভালোবাসার রূপ

আরো পড়ুনঃ  তোমার ভালোবাসার রূপকথা • পর্ব-১০

অতঃপর একদিন ওদের সাথে বেরিয়েছি সারাদিন ঘুরব সেই লক্ষ্যে কারণ ঘোরাঘুরি আমার খুব বেশি পছন্দ স্বাধীন করার লক্ষ্যে বের হওয়ার পরে যে তোমাদের নিজস্ব ব্যক্তিগত গাড়ির ড্রাইভিং আমি করেছিলাম আমার পাশের সিটে ছিল কথাবার্তা অনেক কিছু বললাম তারপরে আমরা খাওয়ার জন্য একটা রেস্টুরেন্টে ঢুকলাম ঢোকার পরে খাওয়া-দাওয়া শেষ করলাম বসে আড্ডা দিচ্ছি এর মধ্যে হঠাৎ করে একটা মেয়ে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরল বলল কিরে কেমন আছিস তোর তো কোনো খবর নেই ইংল্যান্ড থেকে আসার পরে আমাদের সাথে আর কোন যোগাযোগ করলিনা। ভালোবাসার রূপ

বিয়ে করলে নাকি তোমার সাথে উনি কে? আমি বললাম ও আমার গার্লফ্রেন্ড! মেয়েটার নাম ছিল জেসমিন ওর সাথে পরিচয় ছিল ইংল্যান্ড বসে আমরা একই ভার্সিটিতে পড়তাম ওখানে জেসমিন লেখাপড়া শেষ করে নিজের দেশের জন্য কিছু করতে চাই। ভালোবাসার রূপ

এই গল্পের বাকি অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন।