ফল খাওয়ার উপকারিতা | Jemon Blog
ঢাকামঙ্গলবার - ৩১ আগস্ট ২০২১
  1. অনলাইন জব
  2. গল্প জানুন
  3. টেক আপডেট
  4. লাভ স্টোরি
  5. সাকসেস লাইফ
  6. সোস্যাল আপডেট
  7. হেলথ টিপস

ফল খাওয়ার উপকারিতা

যেমন ব্লগ ডেক্স
আগস্ট ৩১, ২০২১ ১১:৫০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ad

আমরা আমাদের ক্ষুধা নিবারণ বা শারীরের পুষ্টির জন্য ফল খেয়ে থাকি। বিভিন্ন ফলে বিভিন্ন পুষ্টি রয়েছে। ফল আমাদের দেহের বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। কিন্তু আবার যাদের কিডনির রোগ রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে ফলমূল খাওয়া দরকার। এখন আমরা আপনাদের মাঝে আলোচনা করব ফল খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে চলুন সম্পূর্ণ জেনে নেওয়া যাক।

আমরা বিভিন্ন ধরনের খবরে অথবা খবরের কাগজে শুনেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. খালেদা বলেছেন – ফলের সব থেকে বড় সুবিধা হল এটি রান্না করতে হয় না এবং সব ফলের মধ্যে পানির পরিমাণ বেশি হয়ে থাকে। পানির পরিমান বেশি থাকার ফলে গরমের সময় এটি আমাদের শরীরের পানিশূন্যতা পূরণে সহায়তা করে এর ফলে আমাদের শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেয় না।

আমাদের বাংলাদেশে মৌসুম ভিত্তিতে বিভিন্ন ধরনের ফল পাওয়া যায়, যেমন – আম, কাঠাল, লিচু, জাম, জামরুল, লটকন, বেল ইত্যাদি।

এর মধ্যে কিছু ফলের উপকারিতা নিচে দেওয়া হল:

আম

আম প্রায় সকলের কাছে খুব জনপ্রিয় একটি ফল। আম স্বাদ, পুষ্টি ও মিষ্টি গন্ধে অতুলনীয় একটি ফল। বাংলাদেশ কাঁচা আম এপ্রিল মাস থেকেই পাওয়া যায়। আর পাকা আম আসতে শুরু করে মে মাস থেকে। দেশীয় আম পাওয়া যায় জুলাই ও আগস্ট মাস পর্যন্ত।

ad
আরো পড়ুনঃ  Happiness আসলে কি? - আয়মান সাদিক

আম আমাদের শরীরের আয়রন ও সোডিয়ামের ঘাটতি পূরণে বেশ কার্যকরী সূত্র(কৃষি তথ্য সার্ভিস)। রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমায় আম এবং বহুল প্রচলিত রোগ ডায়াবেটিস এর সাথে লড়াই করে। আম দেহের কেন্সার কোষ কে মেরে ফেলতে সহায়তা করে। এছাড়া উচ্চ পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে আমে যা বিভিন্ন ধরনের জীবাণু থেকে দেহকে রক্ষা করে। আমরা সকলেই জানি ভিটামিন এ দৃষ্টি শক্তি ভালো রাখে, এই ভিটামিন এ পাওয়া যায় আম থেকে। আমাদের চোখের চার পাশের শুষ্ক ভাব দূর করতে সহায়তা করে। দেহের শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে কাঁচা আম। কাঁচা আম খাওয়া উপকারী লিভারের সমস্যায়। বাইল এসিড নিঃসরণ বাড়ায় এটি। ব্যাকটেরিয়া পরিস্কারে সহায়তা করে অন্ত্রের এবং আমাদের দেহে নতুন রক্ত তৈরীতে সহায়তা করে

লিচু

লিচু গ্রীষ্মকালীন ফল। খুব কম সময়ই এই ফল পাওয়া যায়। এটি টিউমার প্রতিরোধে সহায়তা করে। লিচু খুবই সুস্বাদু একটি ফল। ভিটামিন – সি, শক্তি, শর্করা, আমিষ, ক্যালসিয়াম রয়েছে লিচুতে।

জাম

জাম বিশেষ ভূমিকা রাখে অরুচি ভাব ও বমিভাব নিরাময়ে। অনেকেই মনে করেন, দেহের রক্ত তৈরি করে জাম। কিন্তু এটি নিয়ে বিজ্ঞানিক কোনো তথ্য নেই। ভিটামিন – সি, ক্যারোটিন, লৌহ, ক্যালসিয়াম, চর্বি, আমিষ, শর্করা, শক্তি ইত্যাদি পাওয়া যায় জাম এ। এটি শরীরের হাড়কে মজবুত করতে সহায়তা করে, ডায়রিয়া ও আলসার নিরাময়ে ভূমিকা রাখে। স্মৃতি শক্তি বাড়াতে, টক টানটান ও ডিটক্সিফায়ার হিসেবে ও কাজ করে। ক্যান্সার সৃষ্টিকারী জীবাণু এবং বিকিরণে সহায়তা করে জাম।

আরো পড়ুনঃ  সবুজ সবজি খাওয়ার উপকারিতা

কাঁঠাল :

কাঁঠাল বাংলাদেশের জাতীয় ফল। এই ফলের প্রতি অংশই খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণে এনার্জি থাকে সূত্র (কৃষি তথ্য সার্ভিস)। কাঁঠাল গ্রীষ্মের ফল। ৯০ কিলোক্যালরি পাওয়া যায় প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁঠালে এবং ০.৯ গ্রাম খনিজ লবণ পাওয়া যায়। আমাদের রক্তে চিনির মাত্রা বাড়ানোর জন্য কাঁঠাল খুবই উপকারী।

থায়ামিন, পটাসিয়াম, আয়রন, সোডিয়াম, জিঙ্ক সহ নানা ধরনের উপাদান রয়েছে কাঁঠালে। এছাড়াও মানব দেহের জন্য উপযোগী আমিষ, শর্করা প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে কাঁঠালে, যা মানবদেহের জন্য উপযোগী। রাতকানা রোগ প্রতিরোধে কাঁঠাল বিশেষ ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশের সর্বত্র কাঁঠাল পাওয়া যায়, তবে বাংলাদেশের আশুলিয়ায় বেশি উৎপন্ন হয়।

তরমুজ :

প্রচুর আ্যন্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে তরমুজে যা আমাদের স্ট্রেস কমিয়ে দেয়। কোলন ক্যান্সার, ফুসফুসের ক্যান্সার ও স্তন কেন্সারের ঝুঁকি কমায়। প্রচুর পরিমাণে পানি থাকে তরমুজে, সতেজ করে তোলে আমাদের শরীর। চোখ ভালো রাখতে সহায়তা করে।

এছাড়াও ফল আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের সকলের খাদ্য তালিকায় নিয়মিত ফল থাকা জরুরী। ফলের ভেতরে থাকা ভিটামিন গুলো আমাদের শরীরের বিভিন্ন ধরনের উপকার করে থাকে। এজন্য ফল আমাদের সকলের জন্য জরুরি। প্রত্যেকদিন নিয়মিত ফল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

আরো পড়ুনঃ  ডিম খাওয়ার উপকারিতা