স্বাস্থ্য রক্ষা করার উপায় | Jemon Blog
ঢাকাসোমবার - ৩০ আগস্ট ২০২১
  1. অনলাইন জব
  2. গল্প জানুন
  3. টেক আপডেট
  4. লাভ স্টোরি
  5. সাকসেস লাইফ
  6. সোস্যাল আপডেট
  7. হেলথ টিপস

স্বাস্থ্য রক্ষা করার উপায়

যেমন ব্লগ ডেক্স
আগস্ট ৩০, ২০২১ ৫:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ad

আমরা সকলেই সব সময় আমাদের স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন থাকার চেষ্টা করি। এজন্য আমাদেরকে অনেক নিয়ম কানুন মেনে চলতে হয়। কিন্তু একটু অসচেতনতার ফলে শরীরে দীর্ঘস্থায়ী সমস্যাগুলো সৃষ্টি হতে পারে। তাই আমাদের উচিত,আমাদের স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন থাকা। চলুন দেখে নেয়া যাক কি কি উপায় অবলম্বন করে আমরা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে পারি। এবার আপনাদের মাঝে স্বাস্থ্য রক্ষা করার উপায় নিয়ে কথা বলবো।

আমরা মনে করে থাকি হাঁটাহাঁটি করে এবং বিভিন্ন ডায়েট মেনে চলে আমরা আমাদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বজায় রাখতে পারি এবং সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে পারি।

কিন্তু যদি বলা হয় যে এত কষ্ট করে এগুলো মেনে চলার প্রয়োজন নেই বরং কিছু উপায় অবলম্বন করে আপনি আপনার স্বার্থ রক্ষা করতে পারবেন এবং সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে পারবেন। না না এটি আপনার সাথে মজা করা হচ্ছে না এটি সত্যি।

সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হলে আমাদের অবশ্যই কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। যেমন:

ad

বিষয়: এক

সবসময় বাম কানে ফোন রিসিভ করবেন। ডান কানে ফোন রিসিভ এর ফলে আমাদের কানের খুব দ্রুতই ক্ষতি হতে পারে এবং এর ফলে আমাদের ব্রেইন ড্যামেজ হওয়ার আশঙ্কা থাকে। সচেতনতা রক্ষার্থে বাম কানে ফোন রিসিভ করবেন।

বিষয় দুই: খাবার গ্রহণের সচেতনতা:

সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হলে অবশ্যই আমাদের খাবার নিয়ে সচেতনতা রক্ষা করা দরকার। আমরা অনেক সময় বিভিন্ন ডায়েট এবং কিছু টিপস ফলো করার চেষ্টা করি কিন্তু তারপরও আমরা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে সক্ষম হই না। আমাদের উচিত আমাদের প্রতিদিনের খাবার সময় মত খাবার চেষ্টা করা। অবশ্যই আমাদের সকালের খাবার আটটা থেকে নটার মধ্যে খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। দশটার পর সকালের খাবার খাওয়া উচিত নয় এতে আমাদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়।

আরো পড়ুনঃ  এডসেন্স অ্যাড লিমিট কেন হয়?

দুপুরের খাবার আমাদেরকে একটা থেকে দুটোর মধ্যে খেয়ে ফেলতে হবে। চারটার পর ভারী নাস্তা করার ফলে আমাদের শারীরিক অক্ষমতার সৃষ্টি হয়। আমাদের উচিত খাবার সময়মতো খাওয়া। রাতের খাবার আমাদের অবশ্যই রাত আটটা থেকে নটার মধ্যে খেতে হবে। দশটার পর কখনো রাতের খাবার খাওয়া উচিত না এতে আপনাদের পাকস্থলীর খাবার হজম করতে সমস্যা হয় এর ফলে আমরা বিভিন্ন রোগের সম্মুখীন হয় এবং এতে আমাদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়।

পানি পান করা:

সুস্বাস্থ্য রক্ষার্থে আমাদেরকে অবশ্যই বেশি পরিমাণ পানি পান করতে হবে। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের প্রতিদিন দুই থেকে তিন লিটার পানি পান করা উচিত এতে শুধু আমাদের সুস্বাস্থ্য নয় আমাদের ত্বক রক্ষার্থে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পানি পান করার কিছু নিয়ম রয়েছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি পান করলে আমাদের পেটের সমস্যা হতে পারে এজন্য নিয়মকানুন মেনে পানি পান করা উচিত। পানি পান করা উচিত তবে সকালে তুলনায় রাতে তুলনামূলকভাবে কম পানি পান করা উচিত। এছাড়াও আমাদের বিভিন্ন বিষয়ে খেয়াল রাখা উচিত।

যেমন: ফোনের ব্যাটারি।

অনেকেই বাচ্চাদের ক্ষেত্রেও এটা করি ৷ফোনের ব্যাটারি যখন ১০ পারসেন্ট অথবা তার নিচে চলে যায় তখন ফোন রিসিভ না করাই ভালো। ফোনের রেডিয়েশন তখন ১,০০০ গুণ বেশি শক্তিশালী হয় যা আমাদের জন্য ক্ষতিকারক৷ এই জন্য অবশ্যই ১০ পার্সেন্টের নিচে চার্জ গেলে ফোন দিবেন না এবং যথাসম্ভব বাচ্চাদেরকে ফোন কম ব্যবহার করতে দিবেন।

আরো পড়ুনঃ  ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

নিজের ইচ্ছের দিকে নজর দিতে হবে:

আমরা মনে করি খুব সহজ উপায়ে আমরা নিজের দেহের সুস্থতা পেতে পারি কিন্তু, বৃটেনের এক্সপ্লোরের বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পর্শ এক্সেসাইজ বিষয়ক শিক্ষক ডক্টর নিডসন বলেছেন আমাদের নিজেদের মনের উপরে বিশেষ খেয়াল দেয়া দরকার বা প্রয়োজন। তার ভাষ্যমতে, আত্ম সচেতনতা বাড়িয়ে মনের উপরে আমাদের নিয়ন্ত্রণ বাড়ানো সম্ভব হয়।

এছাড়া তিনি আরো বলেছেন আত্মসচেতনতা এমন একটি জিনিস যা মানুষকে নিজের আবেগ অনুভূতি ইচ্ছা-অনিচ্ছা অনেক নিবিড় ভাবে চিনতে সহায়তা বা সাহায্য করে।। তাই আমাদের উচিত নিজেদের ইচ্ছাতে গুরুত্ব দেয়া।

পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানোর অভ্যাস:

একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের দৈনিক সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুম প্রয়োজন। তবে দীর্ঘদিন যদি আমাদের ঘুমের ঘাটতি চলতে থাকে তবে শরীরের উপরে খুবই নেতিবাচক প্রভাব পড়বে যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক। তাহলে আমাদের বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় যেমন মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া। এছাড়াও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে আমাদের বিভিন্ন দ্বিধাদ্বন্দ্বের সম্মুখীন হতে হয়। আমাদের সকলের মনে রাখা উচিত সুস্থ দেহ ও মনের সুস্থতা রক্ষার পর্যাপ্ত ঘুমের কোনো বিকল্প নেই।

আরো পড়ুনঃ  স্যালাইন খাওয়ার উপকারিতা

সুস্বাস্থ্য রক্ষায় শাক-সবজি ও ফল ফলাদির ব্যবহার:

সুস্বাস্থ্য রক্ষার্থে যে শুধুমাত্র ব্যায়াম কিংবা ঘুম এগুলি কার্যকরী তা কিন্তু নয় সুস্বাস্থ্য রক্ষায় আমাদেরকে অবশ্যই খাবারে বিভিন্ন রকম সবুজ শাকসবজি হলুদ শাকসবজি অথবা ফলমূল গ্রহণ করতে হবে। সবুজ শাক সবজিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ভিটামিন সি ভিটামিন এ যেগুলো আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত কার্যকর।

এছাড়াও ফলমূল গ্রহণের ফলে আমাদের বিভিন্ন প্রকার ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ হয় যেমন পেয়ারা আমলকি এগুলো গ্রহণ করার ফলে আমাদের শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ হয়। আমরা অনেকেই আমাদের আর্থিক সমস্যার জন্য বিভিন্ন রকম ফল গ্রহণ করতে পারে না তাদের জন্য আমি বলব যে লেবু। লেবু একটি অত্যন্ত সহজলভ্য ফল যা আমরা খুব সহজে কিনতে পারি এবং এটি গ্রহণের ফলে আমাদের দেহে ভিটামিন সি এর গুনাগুন কার্যকর হয়।

সুতরাং, যদি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে চাই তবে আমাদের অবশ্যই উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো দিকে নজর দিতে হবে। তবেই আপনি শুধুমাত্র ডায়েট কিংবা বিভিন্ন টিপস ছাড়াই নিজেকে করে তুলতে পারবেন একজন সুস্থ সবল মানুষ